শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন

সুনামগঞ্জে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে মৎস্য অবমুক্তকরণ,র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

Sanu Ahmed
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৫ জুলাই, ২০২৩
  • ৪১ Time View

 

”নিরাপদ মাছে ভরবো দেশ,গড়বো স্মার্ট বাংলাদেশ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে সুনামগঞ্জে সপ্তাহব্যাপী জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে মৎস্য অবমুক্তকরণ,র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

মঙ্গলবার বিকেলে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসন ও জেলা মৎস্য অধিদপ্তরের যৌথ আয়োজনে জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন শেষে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার প্রশান্ত দে”র সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধন করেন সুনামগঞ্জ -৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বিরোধী দলীয় হুইপ এড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ।

 

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন,অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মোহাম্মদ রেজাউল করিম,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাজন চন্দ্র দাস,জেলা মৎস্য অফিসার মো. সামছুল করিম,জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান,সুনামগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি ও মোহনা টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি কুলেন্দু শেখর দাসসহ জেলার বিভিন্নস্তরের মৎস্যজীবি ও সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সুনামগঞ্জ -৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বিরোধী দলীয় হুইপ এড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ বলেছেন,মৎস্যভান্ডার হিসেবে খ্যাত আমাদের হাওরের জেলা সুনামগঞ্জে প্রায় ১৪১ প্রজাতির দেশীয় প্রকৃতির মাছ প্রাকৃতিকভাবে এখানে হতো। কিন্তু কালের আবর্তে এবং জলবায়ূ পরিবর্তন ও একশ্রেণীর অসাধু মৎস্যজীবিরা মৎস্য আইনের নীতিমালা লংঘন করে প্রকাশ্যে দিবালোকে কিংবা রাতের আধাঁরে কোণা,কারেন্ট জাল দিয়ে মৎস্য নিধনের হুলি খেলায় মেতে উঠায় অনেক দেশীয় প্রজাতির মাছ আজ বিলুপ্ত হয়ে গেছে। তিনি মৎস্যজীবিদের উদ্দেশ্যে বলেন,অসংখ্য হাওর ও খালবিল জলাশয়ের এই জেলায় প্রশাসনের কর্মকর্তা মৎস্য সংরক্ষনে তাদের লোকবল কমথাকায় তাদেও পক্ষে তদারকি করা খুব ডিফিকাল্ট হয়ে দাঁড়ায়। কাজেই দেশীয় প্রজাতির মৎস্য প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সকল সৎস্যজীবিরা যে যে হাওরে তাদের অবস্থান ঐ সমস্ত হাওরে যাতে কেহ আইন কানুন উপেক্ষা করে মৎস্য নিধন করতে না পারেন সেদিকে নজর রাখার আহবান জানান। তিনি বলেন পদ্মার পাড়সহ আশপাশের মৎস্যজীবিরা সচেতন হওয়ার কারণে বিশে^ ইলিশ রপ্তানিতে বাংলাদেশ আজ শীর্ষে। কাজেই এক সময় ছিল সুনামগঞ্জের হাওরে প্রাকৃতিকভাবে যে মিঠাপানির সুস্বাদু মাছ উৎপন্ন হতো তা সুনামগঞ্জের বিশাল জনগোষ্ঠির আমিষের চাহিদা মিঠিয়ে ও তা দেশের বিভিন্ন জেলাসহ বিদেশে রপ্তানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন হতো। সেই পূর্বেকার অবস্থায় এই জেলাকে মৎস্যভান্ডারে ফিরিয়ে আনতে হলে সবাইকে মৎস্য সংরক্ষন,মাছের প্রজনন বৃদ্ধিতে আরো সচেষ্ট হওয়ার আহবান জানান। তিনি জেলার সকল হাওরের বিল ও জলাশয় যারা ইজারা নিবেন তাদেরকে মৎস্য নীতিমালা আইন মেনে ভাসমান অবস্থায় মৎস্য আহরণের আহবান জানান। কোন ইজারাদার বিল খননের নামে বিলের তলা শুকিয়ে মৎস্য আহরণ করলে বোরো মৌসুমে সেচ সংকটে কৃষকদের জমির ফসল বিনষ্ট হওয়ার আশংঙ্কা থেকে যায়। তিনি সকল,নদনদী,খালবিলগুলো খননের মাধ্যমে সকল জলাশয়ে বিভিন্ন প্রজাতির মৎস্য পোনামাছ অবমুক্ত করে মৎস্যভান্ডারের জেলার পূর্বেও অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সর্বস্তরের সুনামগঞ্জের জনসাধারনের প্রতি আহবান জানান। এ সময় ৩জন সফল মৎস্য চাষীকে সম্মাননা ক্রেষ্ট তুলে দেন অতিথিরা।

পরে শহরের উপজেলা পরিষদের পুকুরে ৪০ কেজি দেশীয় প্রজাতির পোনা মাছ অবমুক্ত করেন সুনামগঞ্জ -৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বিরোধী দলীয় হুইপ এড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ ও জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরীসহ সকল অতিথিবৃন্দরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2023 Coder Boss
Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102