শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০২:০৮ পূর্বাহ্ন

ধারাবাহিক উন্নয়নে বদলে গেছে নরসিংদীর চরাঞ্চল 

Saddam uddin Raj
  • Update Time : শনিবার, ৫ আগস্ট, ২০২৩
  • ৪৩ Time View

 

আশিকুর রহমান, স্টাফ রিপোর্টার :-

রাজধানীর সংলগ্ন তাঁত ও কৃষিনির্ভর জেলা নরসিংদী। নারায়ণগঞ্জ মহকুমা থেকে ১৯৮৪ সালে এ জেলা স্বীকৃতি লাভ করে। তাঁত কাপড়ের বিখ্যাত বাজার ম্যানচেষ্টারখ্যাত মাধবদী ও বাবুরহাট এ জেলায় অবস্থিত। সবজির ভাল ফলন হয় বলেও খ্যাতি রয়েছে এ জেলায়। প্রচুর পরিমাণে সবজি, কলা ও দেশীয় ফল উৎপাদনেও রয়েছে সুনাম। এসব সবজি, কলা ও ফল জেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্যান্য জেলায় সরবরাহ হয়ে থাকে। জেলার সর্বত্র লেগেছে উন্নয়নের ছোঁয়া। তার মধ্যে নরসিংদী সদর উপজেলা অন্যতম। মেঘনা, পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, আড়িয়াল খাঁ ও হাড়িধোয়া নদী বেষ্টিত নরসিংদী সদর উপজেলা। এর মধ্যে ১৪টি ইউনিয়ন, ২টি পৌরসভা ও ২টি থানা নিয়ে এ উপজেলাটি গঠিত হয়। এর আয়তন প্রায় ২১৩.৪৪ বর্গকি.মি. মোট জনসংখ্যা ৫৭৮৫৬৩ জন। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩টি ইউনিয়ন বাদে ১১টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভা নিয়ে সদর-১ আসনের সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ সংসদীয় আসনের একজন সফল সাংসদ উন্নয়নের রুপকার চরাঞ্চলবাসীর আশার বাতিঘর মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু (বীর প্রতীক) তিনি। জন্ম ৩ আগস্ট ১৯৫১ সালে নরসিংদী জেলা রায়পুরা উপজেলার ডৌকারচর গ্রামে। বর্তমানে তিনি নরসিংদী সদর উপজেলার বৌয়াকুড় এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা। বাবা আবদুল হাকিম, মা আকতারুন নেছা। সহধর্মিণী ফারজানা নজরুল। বর্তমানে তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে একজন খেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে তার সাহসিকতার জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে বীর প্রতীক খেতাব প্রদান করেন। খেতাবের সনদ-২১। তিনি পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে উন্নত প্রশিক্ষণ নিয়ে সরাসরি অন্তর্ভুক্ত হন প্রথম বাংলাদেশ ওয়ার ফোর্সে। প্রশিক্ষণ শেষে তিনি অক্টোবর মাসের প্রথমার্ধে আবার যুদ্ধে যোগ দেন। মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম (হিরু) স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতেই থেকে যান।লেফটেন্যান্ট কর্নেল হিসেবে অবসর গ্রহণের পর ২৯ ডিসেম্বর ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা রাজধানীর পাশ্ববর্তী গুরুত্বপূর্ণ জেলা নরসিংদীতে মোহাম্মদ নজরুল ইসলামকে নৌকা প্রতীক দিয়ে পাঠান। জনগণের বিপুল ভোটে জয়লাভ করে এমপি নির্বাচিত হোন। নির্বাচিত হওয়ার পর বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি একে একে বাস্তবায়ন করতে থাকেন। নজরুল ইসলাম হিরুর সততা, মেধা ও বিশ্বস্ততায় শহর-গ্রামের বৈষম্য দূর করে চরাঞ্চলের প্রতিটি গ্রাম এখন শহরের মতো বসবাসযোগী হিসেবে খ্যাতি পেয়েছে। কর্মসংস্থান সৃষ্টি থেকে শুরু করে প্রসার ঘটেছে ব্যবসা-বাণিজ্যে। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামগুলোতে রাস্তাঘাট, সুউচ্চ ভবন দেখলে মনে হয় শহরের বাইরে যেন আলাদা আরেকটা শহর। প্রতিটি গ্রামে রাস্তাঘাট নির্মাণ, বিদ্যুতায়ন, শিক্ষা, ধর্মীয় সামাজিক প্রতিষ্ঠান উন্নয়ন, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, স্বাস্থ্য সেবার উন্নয়ন এবং কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাকরণসহ সার্বিক উন্নয়ন কর্মকান্ড সাধিত হয়েছে। বিদ্যুত, রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন অবকাঠামোগত সুবিধা ভোগ করছেন এখন নরসিংদী সদর উপজেলাবাসী। এরমধ্যে অন্যতম মেঘনা নদীর উপর নির্মিত শেখ হাসিনা সেতু। এছাড়াও পানি উন্নয়ন বোর্ড নরসিংদীর তত্ত্বাবধানে ৯শ’ ৩ কোটি ৪১ লাখ ১৭ হাজার টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক মেঘনা নদীসহ ৬টি নদীর খননকাজ এবং নদীর দুপাড়ে ২শ’ ৩৪ দশমিক ৪ কিলোমিটার শহররক্ষা বাঁধ ও বেড়িবাঁধ নির্মাণ করেছেন। এতে শহর ও চরাঞ্চলবাসী নদী ভাঙ্গন ও বন্যার পানি থেকে রক্ষা পাবে। স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে নরসিংদী নরসিংদী শহরের অদূরে বাসাইলে ৩৫ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে নরসিংদী ১শ’ শয্যাবিশিষ্ট জেলা হাসপাতালটি ২শ’ ৫০ শয্যায় উন্নীত করেছেন। এতে করে নরসিংদী ও আশপাশের জেলাবাসীদের জরুরী উন্নত চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করেন। এছাড়াও শিশু একাডেমি, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, জেলা পরিষদের ডাকবাংলো সহ উল্লেখযোগ্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং অসংখ্য স্কুল-কলেজ উন্নয়ন বা নির্মাণের দাবীদার।

মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু এমপি প্রতিনিধিকে বলেন, দেশের সকল উন্নয়নের দাবীদার বঙ্গবন্ধুর তনয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারই ধারাবাহিকতায় চরাঞ্চলবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী মেঘনা নদীর উপর সেতু নির্মাণ। তাদের দাবীর প্রেক্ষিতে শহরের পাশ্ববর্তী মেঘনা নদীর উপর ৮০ কোটি ৬৬ লাখ ৮৭ হাজার টাকা ব্যায়ে ৬শ’ ৩০ মিটার দৈর্ঘ্য শেখ হাসিনা সেতু নির্মাণ এবং নরসিংদী- করিমপুর সড়ক নির্মাণ করে দিয়েছি। সেতু ও সড়ক নির্মাণের ফলে চর এলাকার মানুষ এখন অনায়াসে রিক্সা, অটোরিক্সাসহ অন্যান্য যানবাহনযোগে নিজ নিজ গন্তব্যে আসা যাওয়া করতে পারছে। সেতু নির্মাণের আগে ঝড়-বাদল উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চরাঞ্চলের লোকজন মেঘনা নদী পাড়ি দিতে হতো। অনেক সময়েই শোনা যেত ঝড়ের কবলে পড়ে মেঘনায় নৌকা ডুবিতে লোকজনের প্রাণহানি ঘটেছে। সেতুটি নির্মাণের ফলে মানুষ এখন স্বস্তিবোধ করছে এবং অনায়াসে যাতায়াত করতে পারছে। এছাড়াও মেঘনা, ব্রহ্মপুত্র, পাহাড়িয়া, আড়িয়াল খাঁ, হাড়িধোয়া ও কলাগাছিয়াসহ ৬টি নদ-নদীর খননকাজ ইতোমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। মেঘনায় খননকাজ ও নদীর দুপাড়ে ২শ’ ৩৪ দশমিক ৪ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ আজ দৃশ্যমান। তিনি আরও বলেন, নরসিংদীকে বিএনপির ঘাঁটি থেকে আওয়ামী লীগের ঘাঁটিতে রুপান্তরিত করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে গ্রামকে শহরে রুপান্তরিত করেছি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে সততার সাথে রাজনীতি করে আসছি।

নজরপুর ইউনিয়নের স্থানীয় বাসিন্দা আলী হোসেন বলেন, জীবনও কল্পনা করি নাই নদীর উপর ব্রীজ হইবো। সে স্বপ্ন বাস্তবে পূরণ করছে হিরু এমপি। আমরা তারে কখনও ভূলবো না। আল্লাহ কাছে দোয়া করি শেখের বেটি শেখ হাসিনাকে আবারও যেন ক্ষমতায় বসায় এবং নরসিংদী সদর-১ থেকে হিরু এমপিরে আবারও যেনও নমিনেশন দেয়।

সেতুর দুপাশে মনোরম পরিবেশে গড়ে উঠেছে রেস্তরাঁ, কফিশপ। ব্যক্তিগত উদ্যোগে বসানো হয়েছে বাচ্চাদের আনন্দ উপভোগের বিভিন্ন উপকরণ। প্রতিদিন বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত শহরের কোলাহল ছেড়ে লোকজন এখন মেঘনা নদী ও প্রকৃতির সৌন্দর্য উপভোগ করতে দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসে এখানে। বর্তমানে নরসিংদীবাসীর জন্য আকর্ষণীয় বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে ওঠেছে এলাকাটি।

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু (বীর প্রতীক) নরসিংদী সদর-১ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পান। তার সততা, মেধা, বিশ্বস্ততা এবং দক্ষ নেতৃত্বের ফলে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা ২০১৪ সালে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব দেন। ২০০৮-২০২৩ টানা তিনবারের সংসদ সদস্য হিসেবে তিনি সংসদ প্রতিনিধিত্ব করে আসছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2023 Coder Boss
Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102